Breaking News
Home / বিবাহ/শাদী / বিবাহ ও দাম্পত্য জীবন

বিবাহ ও দাম্পত্য জীবন

(মুসলিমবিডি২৪ডটকম)

বিবাহ ও দাম্পত্য জীবন

মানুষের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ একটি অনুষঙ্গ। স্বাভাবিক জীবনের অনিবার্য একটি প্রয়োজন।

 

একজন মানুষ যখন শিশু হিসেবে ভূমিষ্ঠ হয় তখনই তার মাঝে খাবারের চাহিদা থাকে;

 

বরং মাতৃগর্ভে প্রাণ সঞ্চারের পর থেকেই তার মাঝে খাবারের চাহিদা সৃষ্টি হয়।

 

এ সময় তার মাঝে মানবজীবনের অন্য অনেক সাধারণ চাহিদা থাকে না।

 

সে ভূমিষ্ঠ হয়ে ধীরে ধীরে যখন বড় হতে থাকে তখন পর্যায়ক্রমে তার অনেক প্রয়োজন দেখা দিতে থাকে।

 

যখন সে আরো বড় হয়, পরিণত বয়সে উপনীত হয় তখন তার বিবাহের প্রয়োজন হয়।

 

ব্যক্তিভেদে মানুষের জীবনে বিভিন্ন ধরনের প্রয়োজন থাকতে পারে,

 

তবে কিছু প্রয়োজন এমন রয়েছে, যা প্রায় প্রতিটি মানুষের মাঝেই বিদ্যমান।

 

বিবাহ তার মধ্যে একটি

 

আল্লাহ্ তা’আলা কুরআন মাজীদে এ বিষয়ে আলোচনা করেছেন এবং একে মানবজাতির প্রতি অনুগ্রহ হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

 

যেহেতু সমগ্র জগৎ আল্লাহরই সৃষ্টি, জগতের নিয়ম-নীতি তিনিই তৈরি করেছেন,

 

মানুষের স্বভাব-প্রকৃতি তাঁরই সৃষ্টি, তাই প্রত্যেক সৃষ্টির মাঝে এমন উপাদান তিনি দান করেছেন,

 

যার মাধ্যমে জগৎটা সুন্দরভাবে পরিচালিত হতে পারে। এ ব্যবস্থা তাঁরই দেয়া। তাঁরই হিকমত।

 

আল্লাহ্ তা’আলা বলেন

 

*وَ مِنْ اٰیٰتِهٖۤ اَنْ خَلَقَ لَكُمْ مِّنْ اَنْفُسِكُمْ اَزْوَاجًا لِّتَسْكُنُوْۤا اِلَیْهَا وَ جَعَلَ بَیْنَكُمْ مَّوَدَّةً وَّ رَحْمَةً ؕ اِنَّ فِیْ ذٰلِكَ لَاٰیٰتٍ لِّقَوْمٍ یَّتَفَكَّرُوْن.*

 

*(তরজমা :)* আর তাঁর নিদর্শনাবলীর মধ্য থেকে এটি একটি যে,

 

তিনি তোমাদের জন্য তোমাদেরই মধ্য হতে সৃষ্টি করেছেন তোমাদের সঙ্গীণীকে,

 

যাতে তোমরা তাদের নিকট শান্তি লাভ করতে পার এবং তোমাদের (-স্ত্রীর) পরস্পরের মধ্যে ভালোবাসা ও দয়া সৃষ্টি করেছেন।

 

নিশ্চয় এতে বহু নিদর্শন রয়েছে, সেইসব লোকের জন্য, যারা চিন্তা-ভাবনা করে। *[সূরা রূম : ২১]*

 

অন্যত্র আরো ইরশাদ করেন

 

*هُوَ الَّذِیْ خَلَقَكُمْ مِّنْ نَّفْسٍ وَّاحِدَةٍ وَّ جَعَلَ مِنْهَا زَوْجَهَا لِیَسْكُنَ اِلَیْهَا*

 

*(তরজমা :)* তিনি তোমাদেরকে এক ব্যক্তি হতে সৃষ্টি করেছেন এবং তাঁর থেকেই তাঁর স্ত্রীকে বানিয়েছেন,

 

যাতে সে তার নিকট প্রশান্তি লাভ করতে পারে। *[সূরা আরাফ : ১৮৯]*

 

একসময় মানুষ ছিল না। আল্লাহ্ তা’আলা মানুষ সৃষ্টি করতে চাইলেন।

 

উদ্দেশ্য, তাঁরা তাঁর ইবাদত করবে, তাঁর হেদায়েত মত চলবে।

 

আল্লাহ্ তা’আলা কীভাবে মানুষ সৃষ্টি করলেন? একসাথে?

না বরং প্রথমে একজন, অতপর তার থেকে তার , অতপর তাদের থেকে সকল মানুষকে।

 

কুরআনে কারীমে আল্লাহ্ তা’আলা ইরশাদ করেন

 

*یٰۤاَیُّهَا النَّاسُ اتَّقُوْا رَبَّكُمُ الَّذِیْ خَلَقَكُمْ مِّنْ نَّفْسٍ وَّاحِدَةٍ وَّ خَلَقَ مِنْهَا زَوْجَهَا وَ بَثَّ مِنْهُمَا رِجَالًا كَثِیْرًا وَّ نِسَآءً.*

 

*(তরজমা :)* হে মানব! তোমরা তোমাদের প্রতিপালককে ভয় কর,

 

যিনি তোমাদেরকে সৃষ্টি করেছেন এক ব্যক্তি থেকে এবং তারই থেকে তার স্ত্রী সৃষ্টি করেছেন,

 

আর তাদের থেকে বহু নর-নারী ছড়িয়ে দিয়েছেন। *[সূরা নিসা : ১]*

 

মানুষের মাঝে বিবাহরীতি আল্লাহ্ তা’আলা দান করেছেন।

 

আর আল্লাহ্ প্রদত্ত এ বিবাহরীতিতে শুধু জাগতিক দিকটিই মুখ্য নয়;

 

বরং তাতে দ্বীনী বা ধর্মীয় দিকটিও সবিশেষ উল্লেখযোগ্য।

 

ইসলাম এ বিধানের হাকীকত ও উদ্দেশ্য এবং এর নীতিমালাকে বিশেষ গুরুত্বের সাথে আলোচনা করেছে।

 

এ সম্পর্কে কুরআন-হাদীসে বর্ণিত কিছু তথ্য তুলে ধরার চেষ্টা করব

 

আল্লাহ্ তা’আলা মানবজাতিকে সৃষ্টি করে এ পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন তাঁর ইবাদতের জন্য।

 

তাদের মূল লক্ষ্য আখেরাতের জীবন। দুনিয়ায় সুশৃঙ্খল জীবনের সাথে সাথে আখেরাতে কীভাবে তারা সফল হবে,

 

সেজন্য তিনি তাদের দিয়েছেন বিস্তারিত পথনির্দেশ। তাই সব কাজে আখেরাতকে স্মরণ রাখা মানুষের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব।

 

্সু্ত্সু্রাং্সু্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্সু্ত্সু্র্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্সু্ত্সু্্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্সু্ত্সু্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্সু্ত্স্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্সু্ত্্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্সু্ত্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্সু্্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্সু্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্স্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রাং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্সু্ত্সু্রং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্সু্ত্সু্ং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্সু্ত্সুং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্সু্ত্সং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্সু্ত্ং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্সু্ত্সু্ত্ং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্সু্্সু্ত্ং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্সু্সু্ত্ং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্স্সু্সু্ত্ং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্স্সু্সু্ত্ং্ত্সু্রাং্্ত্সু্রা্রা্রা্রা্রা্রা্রা্রা্রা্রা্রা্রা্রাা্রাাা্রাাাা্রাাাাা্রারা্রা্রা্রা্রাস্সু্সু্

 

নিছক জাগতিক বিষয়গুলোও সে এমনভাবে সম্পাদন করবে, যা দ্বারা সে আখেরাতে সফল হবে।

 

এটাই শরীয়তে কাম্য এবং বিবেকের দাবি

 

বিবাহের প্রসঙ্গটিও এমন। বিবাহকে শরীয়ত নিতান্তই জাগতিক বিষয় বিবেচনা করে না;

 

বরং সেটাকে স্বামী-স্ত্রী এবং তৎপরবর্তী -সন্ততি এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের আখেরাতের সফলতার মাধ্যমও বিবেচনা করে।

আরো পড়ুন 👉নব বিবাহিতদেরকে যে দশটি উপদেশ দিবেন, সন্তানের বিবাহে অভিভাবকের অবহেলা, বিবাহের পূর্বে যে সাতটি প্রস্তুতি নেওয়া জরুরি

About নঙ্গে আসলাফ আফজাল

নঙ্গে আসলাফ আফজাল ১৯৯৫ সালের ১৪ ই এপ্রিল মাসে জন্মগ্রহণ করেন।২০১২ সনে হিফজ সম্পন্ন করেন মাদ্রাসা দাওয়াতুল হক দেওনা,গাজীপুর, ঢাকা । উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করেন২০১৬ সনে ইসলামাবাদ মাদ্রাসা বি-বাড়িয়া । দাওরায়ে হাদিস (মাস্টার্স)সম্পন্ন করেন ২০২০ সনে শাহ সুলতান রহঃ মাদ্রাসা সিলেট । ইসলাম সম্পর্কে জানতে ও জানাতে পছন্দ করেন তাই; Muslimbd24.com এ তার দৈনিক ইসলামী নিউজ সহ বিভিন্ন লিখা প্রকাশিত হয়। ঠিকানা: বালাগঞ্জ, সিলেট। মোবাইল নাম্বার:০১৭১৪৪৭৫৭৪৫ ইমেইল: hafijafjal601@gmail.com

Check Also

বিয়ের কিছুদিন পর স্ত্রীকে কেন ভালো লাগে না

বিয়ের কিছুদিন পর কেন নিজ স্ত্রীকে ভালো লাগেনা

(মুসলিমবিডি২৪ডটকম) বিয়ের কয়েক বছর/মাস পরই অনেকে তাদের স্ত্রীদের মধ্যে তেমন সৌন্দর্য দেখতে পান না, স্ত্রীদেরকে …

Leave a Reply

Powered by

Hosted By ShareWebHost