Breaking News
Home / রোজা / কখন রোজা ভঙ্গ করা জায়েজ ও কখন ভঙ্গ কর ওয়াজিব

কখন রোজা ভঙ্গ করা জায়েজ ও কখন ভঙ্গ কর ওয়াজিব

(মুসলিমবিডি২৪ ডটকম)

রাখলে যদি রোগীর রোগ বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে এমন রোগী এবং মুসাফির ব্যক্তির জন্য করা

তবে রোজা রাখলে মুসাফিরের যদি কোন ক্ষতি না হয় তাহলে তার জন্য রোজা রাখা উত্তম।

যদি মুসাফির জেহাদে লিপ্ত থাকে কিংবা রোজা তার জন্য ক্ষতিকর হয়, তাহলে তার জন্য রোজা ভেঙ্গে ফেলাই উত্তম।

আর যদি রোজা রাখলে মৃত্যুর আশংকা থাকে,  তবে (ঐ অবস্থায়)  রোজা ভেঙ্গে ফেলা ওয়াজিব। তখন রোজা রাখলে গোনাহ হবে।

যে রোগী বা মুসাফির রোজা ভেঙ্গে ফেলেছিল সে যদি উক্ত রোগ অথবা সফর অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে, তাহলে তার উপর ক্বাযা আদায় করা ওয়াজিব হবে না।

আর যদি রোগী সুস্থ হয়ে বা মুসাফির মুকীম হয়ে মৃত্যুবরণ করে তাহলে সুস্থতা লাভ ও মুকীম হওয়ার পরে যতদিন পর্যন্ত জীবিত ছিল।

ততদিনের রোজার ক্বাযা আদায় করা ওয়াজিব হবে।

যদি সে ক্বাযা আদায় না করে থাকে তবে অসিয়তের শর্তে মৃত ব্যক্তির এক তৃতীয়াংশ মাল থেকে ফিদয়া আদায় করা ওলীর উপর ওয়াজিব হবে।

অর্থাৎ প্রতিটি রোজার পরিবর্তে একটি সদকায়ে ফিতর পরিমাণ খানা একজন মিসকিন কে প্রদান করবে।

আর যদি মৃত ব্যক্তি অসিয়য়ত না করে থাকে তাহলে ফিদয়া প্রদান করা ওয়াজিব হবে না।

তবে যদি ওলী নিজের পক্ষ থেকে দিয়ে দেয় তাহলে জায়েজ আছে।

কেউ যদি রমজানের ক্বাযা বিচ্ছিন্নভাবে আদায় করে তাহলে তা আদায় হবে কি

রমজানের রোজার ক্বাযা ইচ্ছা করলে লাগাতার আদায় করতে পারে অথবা ইচ্ছা করলে মাঝে মাঝে বিরতি দিয়েও আদায় করতে পারে।

যদি পুরো বৎসর অতিবাহিত হওয়ার পরেও ক্বাযা,আদায় না করে এবং পুনরায় অন্য রমজান এসে পড়ে তাহলে আগে দ্বিতীয় রমজানের রোজা আদায় করবে,

তার পর পূর্বের ক্বাযা রোজা আদায় করবে। এক্ষেত্রে কোন ফিদয়া প্রদান করা ওয়াজিব হবে না।

মাসআলা: যে বৃদ্ধলোক রোজা রাখতে অক্ষম তার জন্য রোজা না রাখা জায়েজ আছে।

তবে প্রতিটি রোজার পরিবর্তে ফকীর-মিসকিনকে সদকা ফিতর পরিমাণ খানা দান করতে হবে।

পরে কখনো রোজা রাখতে সক্ষম হলে তার উপর উক্ত রোজা ক্বাযা করা ওয়াজিব হবে।

মাসআলা: কোন গর্ভবতী অথবা দুগ্ধদোহনকারীনি যদি নিজের বা নিজের সন্তানের জীবননাশের আআশংকা করে, তবে রোজা ভঙ্গ করতে পারবে পরবর্তিতে ক্বাযা করবে।

এক্ষেত্রে তার উপর ফিদয়া ওয়াজিব হবে না।

About Admin

আমার নাম: এইচ.এম.জামাদিউল ইসলাম ঠিকানা: বালাগঞ্জ,সিলেট। আমি কওমি মাদ্রাসায় কোরাআনের খেদমত করতেছি, পাশাপাশি MuslimBD24.Com সাইটের প্রধান লেখক ও সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। অনলাইন সম্পর্কে মোটামুটি জ্ঞান থাকায়, তাই সময় পেলে দ্বীন ইসলাম প্রচারের সার্থে ইসলামিক কিছু পোস্ট লেখালেখি করি। যাতে করে অনলাইনেও ইসলামিক জ্ঞান সম্পর্কে জ্ঞানহীন মানুষ, ইসলামিক জ্ঞান সহজে অর্জন করতে পারে। একজন মানুষ জন্মের পর থেকে মৃত্যু পর্যন্ত নিজের জীবনকে ইসলামের পথে চালাতে গেলে ইসলাম সম্পর্কে যে জ্ঞান অর্জন করার দরকার,ইনশা-আল্লাহ এই ওয়েব সাইটে মোটামুটি সেই জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। যদি সব সময় সাইটের সাথে থাকে। আর এই সাইটটি হল একটি ইসলামিক ওয়েব সাইট । এ সাইটে শুধু ইসলামিক পোস্ট লেখালেখি হবে। আল্লাহ তায়ালার কাছে এই কামনা করি যে, আমরা সবাইকে বেশী বেশী করে ইসলামিক জ্ঞান শিখার ও শিখানোর তাওফিক দান করুন, আমিন।

Check Also

রোজার নিয়ত

রোজার নিয়ত এর সময় কখন হয়

(মুসলিমবিডি২৪ ডটকম) রোজার নিয়তের সময় হলো, সূর্যাস্তের পর থেকে সুবহে সাদিকের পূর্বক্ষণ পর্যন্ত। সুবহে সাদিক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Powered by themekiller.com