Home / ইবাদত / মসজিদে যেসব কাজ করা নিষেধ

মসজিদে যেসব কাজ করা নিষেধ

(মুসলিম বিডি ২৪.কম) 

মসজিদে যেসব কাজ করা নিষেধ

بسم الله الرحمن الرحيم

মসজিদে নিষিদ্ধ কাজগুলো নিম্নে দেয়া হলো-

(১) মসজিদে দুনিয়াবী কথাবার্তা বল।

(২) দুনিয়ার যে সব কথা মসজিদের বাহিরে বলা জায়েয আছে তাও মসজিদে বলা নাজায়েয। আর যে সব কথা মসজিদের বাহিরে বলা নাজায়েয তা মসজিদে বলা তো একেবারে হারাম।

(৩) কোনো ব্যক্তি যখন মসজিদে দুনিয়ার কথা আরম্ভ করে তখন ফেরেশতারা প্রথমে বলেন-ياولي الله اسكت(হে আল্লাহর দুস্ত! চুপ হও) 

তারপর যদি সে চুপ না করে কথা বলতেই থাকে । তখন ফেরেশতারা বলেন-يابغيض الله اسكت (হে আল্লাহর দুশমন চুপ হও)

তারপর যদি ক্ষান্ত না হয়ে কথা বলতেই থাকে তখন ফেরেশতারা বলেন-لعنةالله عليك اسكت (তোর ওপর আল্লাহর লা’নত, হে আল্লাহর দুশমন! চুপ হয়ে যা)

উপরে উল্লেখীত এটা মানা জরুরী

 (৪) মসজিদে দুনিয়াবী কথাবার্তা বলা নেকী কে এমনভাবে ধ্বংস করে দেয়, যেমনভাবে আগুন কাঠকে জ্বলিয়ে ধ্বংস করে দেয়।- ফতহুল কাদীর

অন্যত্র বর্ণিত আছে, যে ব্যক্তি মসজিদে দুনিয়াবী কথাবার্তা বলে, আল্লাহ তা’আলা তার চল্লিশ দিনের নেক আমল বেকার বা নষ্ট করে দেন।   

        -আল-আশবাহ

(৫) মসজিদে ঝগড়া করা নাজায়েয।

(৬) মসজিদকে রাস্তা বানাবেন না। যেমন, অনেক তাড়াতাড়ি কোথাও পৌঁছার জন্য মসজিদের ভিতর দিয়ে গমন করে থাকে।

(৭) মসজিদের ভিতর কেউ অস্ত্রশস্ত্র বের করবেন না। যেমন, কোষ থেকে তলোয়ার পিস্তল বের করা।

(৮) মসজিদের ভিতর তীর ছড়িয়ে রাখবেন না (কারণ, কারো পায়ে লাগতে পারে)

(৯) কাঁচা মাছ বা গোস্ত নিয়ে মসজিদে যাবেন না। কারণ, এতে মসজিদ দুর্গন্ধময় হবে।

(১০) মসজিদের ভিতর কাউকে শাস্তি দিবেন না।

(১১) মসজিদের ভিতর ক্রয়-বিক্রয় করবেন না।

(১২) যার ওপর গোসল ফরজ হয়েছে তার জন্য মসজিদে প্রবেশ করা হারাম। তেমনি ঋতুমতী ও প্রসৃতি মেয়েলোকেরও মসজিদে প্রবেশ করা হারাম।

-দুররে মুহতার,আল আশবাহ

(১৩) মসজিদে কোনো নাপাক জিনিস প্রবেশ করানো জায়েয নয়।

(১৪) মৃত ব্যক্তিকে মসজিদে দাখেল করা জয়ের নেই এবং মসজিদের ভিতর জানাযা পড়া মাকরূহে তাহরীমি।

-রুদ্দুল মুখতার১/৫৩ ইমদাদুল ফতোওয়া১/৭৬৬

(১৫) পোকা-মাকড় ও উকুন মেরে মসজিদে ফেলা মাকরূহ।

(১৬) দুর্গন্ধযুক্ত বস্তু খেয়ে মুখে দুর্গন্ধ নিয়ে মসজিদে প্রবেশ করা মাকরূ।-তুহফাতুল আহওয়াযী

(১৭) মসজিদে হারানো বস্তুর এলান করা নাজায়ে। -নাসায়ী

(১৮) মসজিদের দেয়ালে লেখা ঠিক নয় বিশেষ করে পশ্চিম দেয়ালে লেখা আরো বেশি ক্ষতিকর।

-রদ্দুল মুহতার১/৪৮৭

(১৯) মসজিদে আঙ্গুল ফুটানো মাকরূহ। মেশকাত : ৬৯ পৃ. শামী: ২/৪৩৫ পৃ.

ইসলাহ: (ক) অনেকে মসজিদে পিকদানী রাখে, কিন্তু তা নিয়মিত পরিষ্কার না করার কারণে দুর্গন্ধময় হয়ে থাকে, এমনটি ঠিক নয় এতে ফেরেশতা ও মুসল্লীদের কষ্ট হয়।

(খ) ছবিযুক্ত ম্যাচ, আগরবাতি, মোমবাতির প্যাকেট মসজিদে রাখার ব্যাপারে সতয়র্কতা অবলম্বন করা চাই।

যেখানে ঘরে ছবি রাখার অনুমতি নেই, সেখানে আল্লাহর ঘর মসজিদে ছবি রাখা কতোটা সমিচীন হবে, তা ভেবে দেখা দরকার।

তালীমুস সুন্নাহ (পৃষ্ঠা ৭৯-৮০)

About saifur rahman

আমি হাফিজ মোঃ সাইফুর রহমান হিফয সম্পন্ন করেছি উমুরপুর বাজার টাইটেল মাদ্রাসা থেকে। বর্তমানে জামেয়া গহরপুরে অধ্যায়নরত আছি। আমার থানা বালাগঞ্জ জেলা সিলেট।

Check Also

কুরবানী ফযীলত ও তার জরুরি মাসায়েল

কুরবানীর ফযীলত ও তার জরুরি মাসায়েল

(মুসলিম বিডি ২৪.কম)  بسم الله الرحمن الرحيم কুরবানীর ফযীলত রাসুলে পাক (সা.) ইরশাদ করেন, কুরবানীর …

One comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Powered by

Hosted By ShareWebHost