Breaking News
Home / যাকাত / যাকাত অস্বীকারকারী ও কাদের উপর যাকাত ওয়াজিব

যাকাত অস্বীকারকারী ও কাদের উপর যাকাত ওয়াজিব

ইসলামের রোকনসমূহের দ্বিতীয়টি হলো যাকাত।

নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাহি ওয়াসাল্লামের ওফাতের পরে আরবেত কতিপয় গোত্র যাকাত প্রদানে অস্কীৃতি প্রকাশ করেছিল।

এতে আবু বকর সিদ্দীক (রাযি.) তাদের বিরুদ্ধে জিহাদ করার সংকল্প করেন।

এ ব্যাপারে উলামায়ে কেরাম একমত যে, যাকাত অস্বীকারকারী কাফের ও যাকাত বর্জনকারী ফাসিক।

কাদের উপর যাকাত ওয়াজিব হয়?

মুসলমান, স্বাধীন, সুস্থ মস্তিস্কসম্পন্ন ও প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির উপর যাকাত ওয়াজিব। তবে শর্ত হলো, তাকে নেসাব পরিমাণ মালের মালিক হতে হবে।

 

উক্ত মাল তার মৌলিক প্রয়োজনদি ও ঋণের বাইরে হতে হবে, উক্ত মাল বর্ধনশীল হতে হবে।

আর এ মালের উপর পুরো এক বৎসর অতিবাহিত হতে হবে।

মৌলিক প্রয়োজন ও করয দ্বারা কি বুঝানো হয়েছে এবং মাল কয়ভাবে বৃদ্ধি পেতে পারে?

মৌলিক প্রয়োজনাদি দ্বারা উদ্দেশ্য হলো, যে সমস্ত সামগ্রীর প্রতি মানুষ নিত্যদিন মুখাপেক্ষী।

যেমন- নিজ পরিবার – পরিজনের ভাত-কাপড়, থাকার ঘর ও জরুরী আসবাবপত্র, বিছানা, চাটাই,  চৌকি ও হাড়ি-পাতিল ইত্যাদি।

উলামায়ে কেরামের জন্য জরুরী কিতাবাদি ও পেশাজীবীদের জন্য জরুরী দ্রব্যাদি সবই মৌলিক প্রয়োজনীয় সামগ্রীর অন্তর্ভুক্ত।

করয দ্বারা কি বুঝানো হয়েছে?

করয: এর দ্বারা ঐ সমস্ত ঋণকে বুঝানো হয়েছে যার তাগাদা মানুষের পক্ষ থেকে হতে পারে। চাই মানুষের নিজস্ব ঋণ হোক, যেমন -করয, ক্রয়কৃত দ্রব্যের মূল্য ইত্যাদি। চাই আল্লাহর ঋণ হোক, যেমন -যাকাত।

কাজেই যে সমস্ত ঋণের তাগাদা মানুষের পক্ষ থেকে হতে পারেনা, যেমন -নযর, মান্নত, কাফফারা, সদকায়ে ফিতর ইত্যাদি যাকাত ওয়াজিব হওয়ার প্রতিবন্ধক নয়।

মাল বৃদ্ধি দুইভাবে হতে পারে।  প্রকাশ্য ও অপ্রকাশ্য। প্রথমটির উদাহরণ হলো, ব্যবসার মাল ও বাচ্চা দেওয়ার মত গবাদি পশু ইত্যাদি। দ্বিতীয়টির উদাহরণ হলো, স্বর্ণ-রোপ্য, টাকা -পয়সা ইত্যাদি। কেননা এগুলোকে মানুষ যখন ইচ্ছা কাজে লাগিয়ে বৃদ্ধি করতে পারে।
যাকাত সম্পর্কে আরো পড়তে এই লিংকে ক্লিক করুন

About Admin

আমার নাম: এইচ.এম.জামাদিউল ইসলাম ঠিকানা: বালাগঞ্জ,সিলেট। আমি কওমি মাদ্রাসায় কোরাআনের খেদমত করতেছি, পাশাপাশি MuslimBD24.Com সাইটের প্রধান লেখক ও সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। অনলাইন সম্পর্কে মোটামুটি জ্ঞান থাকায়, তাই সময় পেলে দ্বীন ইসলাম প্রচারের সার্থে ইসলামিক কিছু পোস্ট লেখালেখি করি। যাতে করে অনলাইনেও ইসলামিক জ্ঞান সম্পর্কে জ্ঞানহীন মানুষ, ইসলামিক জ্ঞান সহজে অর্জন করতে পারে। একজন মানুষ জন্মের পর থেকে মৃত্যু পর্যন্ত নিজের জীবনকে ইসলামের পথে চালাতে গেলে ইসলাম সম্পর্কে যে জ্ঞান অর্জন করার দরকার,ইনশা-আল্লাহ এই ওয়েব সাইটে মোটামুটি সেই জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। যদি সব সময় সাইটের সাথে থাকে। আর এই সাইটটি হল একটি ইসলামিক ওয়েব সাইট । এ সাইটে শুধু ইসলামিক পোস্ট লেখালেখি হবে। আল্লাহ তায়ালার কাছে এই কামনা করি যে, আমরা সবাইকে বেশী বেশী করে ইসলামিক জ্ঞান শিখার ও শিখানোর তাওফিক দান করুন, আমিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »

Powered by themekiller.com