Breaking News
Home / ইতিহাস / নৈপুণ্যের অনুসন্ধান কেন?

নৈপুণ্যের অনুসন্ধান কেন?

(মুসলিম বিডি২৪.কম)

নৈপুণ্যের অনুসন্ধান কেন?

بسم الله الرحمن الرحيم

সমস্ত প্রশংসা আল্লাহ তায়া’লার জন্য

অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করার জন্য  আমি একবার একটি দরিদ্র এলাকায় গিয়েছিলাম অনুষ্ঠানশেষে এলাকায় বাইরে থেকে আগত একজন স্কুল -শিক্ষক।

আমার সাথে দেখা করতে এলেন তিনি আমার বক্তৃতা শুনতে এসেছিলেন তিনি বললেন, আমরা চাই কিছু ছাত্রের দায়িত্বগ্রহণের ব্যাপারে।

আপনি আমাদের সাহায্য করুন আমি বললাম, আশ্চর্য ব্যাপার! স্কুল তো সরকারি এবং অবৈতনিক।

সেখানে এমন আবেদনের যুক্তি কী?
ভদ্রলোক বললেন, হ্যাঁ অবশ্যই স্কুল সরকারি    এবং শিক্ষা অবৈতনিক।

কিন্তু আমরা এসব ছাত্রের বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনারদায়িত্ব নিয়ে থাকি একথা শুনে আমি বললাম বিশ্ববিদ্যালয়েও তো অমনই।

তা কি সরকারি নয়? বরং সেখানে তো ছাত্রদেরকে শুক্ষাবৃক্তিও প্রদান করা হয় তিনি বললেন আমি আপনাকে বিষয়টি খুলে বলছি।

আমাদের এখানকার শতকরা ৯৯ জন ছাত্রই স্কুল থেকে মাধ্যমিক শিক্ষা সমাপ্ত করে তাদের যতেষ্ঠ মেধা ও প্রতিভা থাকে।

কিন্তু পরবর্তীতে যখন তারা মেডিক্যাল ইঞ্জিয়ারিং,ইসলামী আইন অথবা কম্পিউটার ইত্যাদি বিষয়ে পড়ার জন্য বাইরে যেতে মনস্থ করে,

তখন তাদের বাবারা বাধা দেন বলেন যা শিখেছ তা-ই যতেষ্ঠ এবার আমার সাথে ছাগল চারানোর কাজে লেগে যাও।

আমি নিজের অজান্তে চিৎকার দিয়ে বললাম,ছাগল চরানোর কাজ? তিনি বললেন হ্যাঁ ছাগল চরানো তারপর কার্যতই এই ছেলেরা তাদের লেখাপড়।

বাদ দিয়ে বাবার সঙ্গে ছাগল চরাতে আরম্ভ করে ফলে ভিতরে থেকেই মারা যায় এদের মেধা ও প্রতিভা তারা ছাগল চরাতে থাকে বছরের পর বছর।

একসময় বিয়েশাদী করে তাদের সন্তানাদি হয় তারাও সন্তানদের সাথে বাবার আচরণই করে   ফলে পরের প্রজন্মও ছাগল চরায়।

আমি বললাম এই জটিল সমস্যার সমাধান কী; আপনি চিন্তা করেছেন? তিনি বললেন সমাধান একটিই আমরা পিতাকে একটি ছাগল রাখালের।

বেতন দিয়ে দেই এই কয়েকশ রিয়াল মাত্র এই অর্থগুলো দেই আমরা তিনি একজন রাখাল রেখে নেন এবং তার সোনার প্রতিমা সন্তানটি।

তার প্রতিভা এবং মেধা বিকাশে নিয়োজিত থাকে আমরা পড়াশোনা শেষ করা পর্যন্ত সন্তানের ব্যয়ও বহন করি এরপর ভদ্রলোক মাথা নোয়ালেন।

বললেন প্রতিভা ও মেধা মানুষের অন্তরেই মারা যাবে এবং তারা এরজন্য দুঃখ ভোগ করবে এটা কখনও মেনে নেওয়া যায় না কাজটি হারাম।

স্কুল-শিক্ষকের চলে যাওয়ার পর আমি তার কথা নিয়ে ভাবতে লাগলাম তাঁর কথা ঠিক দক্ষতা নষ্ট হতে দেওয়া উচিত নয়।

সহজলভ্য দক্ষতা ব্যবহার না করলে এবং নিজেদের ভিতরে অতিরিক্ত দক্ষতা সৃষ্টি না করলে আমরা সাফল্যের চূরায় পৌঁছাতে পারবনা।

হ্যাঁ লেখাপড়ার ক্ষেত্র বলুন, দাওয়াত ও বক্তৃতার ময়দান বলুন, অথবা ব্যবসা-বাণিজ্য চিকিৎসা ও প্রকৌশলের পেশা বলুন।

কিংবা মানুষকে আকৃষ্ট করার কৌশল বলুন, আপনি সফল ব্যক্তিদের জরিপ করুন বেশি দূর নয় আপনি সমাজের সফল ব্যক্তিদের জীবনপ্রণালি অধ্যয়ন করুন।

আমি চ্যালেঞ্জ করতে পারি দেখবেন একদিন সফল বাবার সাথে সন্তানদের কেমন বনিবনা থাকে অথবা একজন সফল স্ত্রী স্বামীর সাথে কিভাবে।

আনন্দময় জীবনযাপন করেন কিংবা একজন সফল ব্যক্তি কিভাবে পড়সি ও সহকর্মীদের সাথে সাচ্ছন্দ্যে লেনদেন করেন।

আপনি সফল জীবনের অধিকারী সমস্ত লোকের কার্যক্রম প্রত্যক্ষ করুন আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি তাদের মধ্য থেকে প্রত্যেক ব্যক্তি।

চাই তিনি উপলব্ধি করুন  অথবা না করুন তিনি তার নিজের দক্ষতা ব্যবহার করেই সাফল্যের শিখরে আরোহন করেন।

কিছু কিছু মানুষ স্বভাবগতভাবে তাদের দক্ষতা কাজে প্রয়োগ করে আর কিছু কিছু মানুষ দক্ষতা অর্জন করে চর্চা করে শিখে।

তারপর তা ব্যবহার করে সাফল্য লাভ করে  এই দ্বিতীয় শ্রেণির সফল ব্যক্তিদের সম্পর্কেই আমরা তাদের জীবন অধ্যয়ন করব।

তাদের জীবনপ্রণালী পর্যালোচনা করব দেখব তারা কিভাবে সফল হয়েছেন আমরাও কি পারি তাদের সে পথ অবলম্বন করতে এবং তাদের মত সফল হতে?

কিছু দিন আগে দুনিয়ার অন্যতম ধনকুবের জনাব সুলাইমান রাজেহীর সাক্ষাৎকার শুনেছি লোকটি চরিত্র ও চিন্তায় পাহাড়ের মত অটল।

তিনি মিলিয়ন মিলিয়ন ডলারের মালিক জায়গা-জমির অভাব নেই  শত শত মসজিদ নির্মাণ করেছেন শতসহস্র এতিমের ভরণপোষণ দিচ্ছেন।

সাফল্যের চূড়ায় আরোহণকারী একজন মানুষ তিনি কথা বলেছিলেন ৫০ বছর  আগের তাঁর সূচনাকাল থেকে তিনি ছিলেন একজন সাধারণ মানুষ।

কোনদিন দু’বেলা আহার জোটাতে পারতেন কোনদিন পারতেন না অনেক সময় তিনি জীবিকার তাগিদে অন্যের ঘর ঝাড়ু দিতেন।

কখনও সারা রাত জেগে কাজ করতেন কোন দোকান অথবা কোন ব্যাংকে সাক্ষাৎকারে তিনি বর্ণনা করেছিলেন যে, তিনি ছিলেন পর্বতের নিচে।

কিন্তু অবিরাম উঠতে থেকেছেন একসময় তিনি পৌঁছে গেছেন চূরায় আমি রাজেহীর মেধা ও দক্ষতা নিয়ে চিন্তা করলাম।

দেখলাম আমাদের মধ্যে অনেকেই আল্লাহ তৌফিক দিলে তার মত সুনাম ও খ্যাতি অর্জন করতে পারে এরজন্য তাকে কিছু নৈপুণ্য হাসিল করতে হবে।

একটু দক্ষ হতে হবে এবং সে অনুযায়ী খুব শক্তভাবে কাজে নিয়োজিত হতে হবে।

আরেকটি বিষয় যা আমাদের দক্ষতা অনুসন্ধানে উৎসাহিত করে তা হল এই যে আমাদের অনেকের মধ্যে অসম্ভব পর্যায়ের সৃষ্টিশীলতা থাকে।

কিন্তু তারা সে সম্পর্কে একেবারে উদাসীন অথবা  সে সৃষ্টিশীলতা জাগ্রত করতে তাদের কেউ সাহায্য করে না কেউ খুব ভালো বক্তৃতা করতে পারে।

কেউ উন্নত বানিজ্যচেতনা লালন করে  কেউ অত্যন্ত দূরদৃষ্টিসম্পন্ন এসব সৃষ্টিশীল গুণ কখনও কখনও আপনা-আপনি বিকশিত হয়।

কখনও সচেতন শিক্ষক এসব গুণ সম্পর্কে অবহিত করেন চাকরিরত থাকলে কখনও পরিচালক অবগত করেন কখনও কল্যাণকামী ভাই অথবা বন্ধু এগিয়ে আসেন।

সবাই এমন কল্যাণকামী মুরব্বী পায় না কাজেই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এসব সৃষ্টিশীল গুণ হৃদয়ের ভিতরে বন্দী থাকে।

একসময়ে সমাজের স্বাভাবিক চরিত্র তাদের উপর প্রধান্য লাভ করে এবং ফুল বিকশিত না হয়েই ঝরে পড়ে।

তখন আমরা হারিয়ে ফেলি ের কোন বর্ষীয়ান নেতাকে কোন বিরল বক্তাকে অথবা কোন ভালো আলেমকে।

কখনও খুইয়ে ফেলি একজন সফল স্বামীকে অথবা একজন কল্যাণকামী বাবাকে।

মন্তব্য

যখন আপনি পাহাড়ে চড়বেন, তখন চূড়ার দিকে লক্ষ রাখুন চারপাশের বিক্ষিপ্ত পাথরনুড়ির দিকে ফিরে তাকাবেনব না।

সুদূর পদক্ষেপে এগিয়ে যান লাফ দিতে চেষ্টা করবেননা পা ফসকে যেতে পারে।

গুরত্বপূর্ণ একটি বই থেকে সংগৃহীত লেখা বইটির নাম -জীবন উপভোগ করুন। আল্লাহ তায়া’লা সবাইকে কথাগুলো উপলব্ধি করে জীবন সাজানোর তৌফিক দান করন।আমিন।

About saifur rahman

আমি হাফিজ মোঃ সাইফুর রহমান হিফয সম্পন্ন করেছি উমুরপুর বাজার টাইটেল মাদ্রাসা থেকে। বর্তমানে জামেয়া গহরপুরে অধ্যায়নরত আছি। আমার থানা বালাগঞ্জ জেলা সিলেট।

Check Also

ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তা করা বোকামি

ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তা করে বর্তমান নষ্ট করা বোকামি

(মুসলিমবিডি২৪ডটকম) আগামীকাল কি হবে তা নিয়ে চিন্তা করে নিজের বোঝা বাড়ানো নিতান্তই একটি বোকামী। কারণ, …

Leave a Reply

Powered by

Hosted By ShareWebHost