Home / ইসলাম ধর্ম / মেজবানের উপর মেহমানের হক

মেজবানের উপর মেহমানের হক

(মুসলিমবিডি২৪ডটকম)মেজবানের উপর মেহমানের হক 

মেহমানদারী করা ইবরাহীমী ুন্নাত

মেহমানদারী হলো হযরত ইবরাহীম আলাইহি সালাম এর সুন্নত।ফেরেশতা যখন মানুষের ছুরতে তার কাছে এসেছিলেন,

 

মেহমানদারী রূপে তিনি তাদের সামনে গরুর ভুনা বাচ্চা পেশ করেছিলেন।কথিত আছে, তিনি কখনও মেহমান ছাড়া দস্তরখানে বসতেন না।

 

ইসলাম মেহমানদারী করার বিষয়ে মুসলমানদের খুব জোরালো তাকীদ দিয়েছে,

 

এমনকি অন্য কয়েকটি বিষয়ের মত এটিকেও ঈমানের দাবী বলে উল্লেখ করেছে। যেমন,

 

من كان يؤمن بالله واليوم الآخر فليكرم ضيفه

 

(অর্থ) যে ব্যক্তি আল্লাহর প্রতি এবং আখেরাতের প্রতি ঈমান সে যেন মেহমানের ইকরাম করে।

 

ইকরাম করার তরীকাও হাদীস শরীফে বলা হয়েছে।সেগুলো জেনে আমল করা আমাদের কর্তব্য।

 

আর একটি জরুরি বিষয় আমরা সাধারণত মনে করি মেহমান মানে বেড়াতে আসা আত্মীয়-স্বজনও বন্ধু-বান্ধব,

 

কিন্তু ইসলামী শরীয়তে অপরিচিত মুসলিম ও অমুসলিম মেহমানের অন্তর্ভুক্ত।

 

বিখ্যাত দানবীর হাতেম তাই এর পুত্র হযরত আদী বিন হাতিম অমুসলিম অবস্থায় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের খেদমতে এসেছিলেন,

 

আর তিনি মেহমান রূপে তার যথাযোগ্য ইকরাম করেছিলেন।

একটি মশহুর ঘটনা

সাহাবায়ে কেরামের যামানায় একটি মশহুর ঘটনা এখানে উল্লেখ করা খুবই উপযোগী বলে মনে করি।

 

হযরত আবু হুরায়রা রাযিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু হতে বর্ণিত যে,

 

এক ব্যক্তি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের খেদমতে হাজির হয়ে বললো, ইয়া রাসুলাল্লাহ, ক্ষুধার যন্ত্রনা আমা কাবু করে ফেলেছে।

 

তখন তিনি আপন স্ত্রীদের কাছে পাঠালেন, কিন্তু সেখানে কিছু পাওয়া গেল না।

 

তখন তিনি বললেন, এমন কেউ কি আছে যে আজকের রাত্রে এর মেহমানদারী করবে, তা রহম করুন!

 

তখন এক আনসারী দাঁড়িয়ে বললেন, আমি আছি ইয়া রাসুলাল্লাহ! তখন তিনি ঘরে গিয়ে স্ত্রী বললেন, (ইনি) আল্লাহর রাসূলের মেহমান।

 

তা না দিয়ে কিছুই সঞ্চিত রেখো না। স্ত্রী বললেন, আল্লাহর কসম, আমার কাছে তো বাচ্চাদের খাবার ছাড়া কিছুই নেই।

 

তিনি বললেন, বাচ্চারা যখন রাতের খাবার চাইবে, তখন তাদের ঘুম পাড়িয়ে দিও। আর এগিয়ে এসে চেরাগ নিভিয়ে দিও।

 

আমরা আজ রাত্রে পেট বেঁধে রাখবো। স্ত্রী তাই করলেন। লোকটি ভোরে যখন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের খেদমতে হাজির হলো,

 

তখন তিনি বললেন, তা’আলা অবাক হয়েছেন কিংবা হাস্য করেছেন অমুক এবং অমুকা এর বিষয়ে।তাই আল্লাহ তা’আলা আয়াত নাযিল করেছেন,

 

ويؤثرون على انفسهم ولو كان بهم خصاصة

 

(অর্থ) আর তারা নিজেদের উপর অন্যকে অগ্রাধিকার দেয়, যদিও তাদের থা অভাব।

 

আরো পড়ুন 👇👇

মিরাস ও আত্মীয়তার সম্পর্ক এক না অভিন্ন, ইবরাহিম ইবনে আদহাম রহঃ এর ঘটনা

About Hafij Khijir

আমার নাম হাফিজ খিজির আহমদ। ঠিকানা. সিলেট, বাংলাদেশ। আমি কওমি মাদ্রাসার অধ্যায়নরত একজন ছাত্র। আমার ধর্ম ইসলাম । আর আমি এই ইসলাম সম্পর্কে জানতে শিখতে ও শিখাতে ভালোবাসি। আমি যা জানি তা জানাই, এবং যা জানিনা তা জানার চেষ্টা করি ও করতেছি।উদ্দেশ্য একটাই আল্লাহ এবং আল্লাহ তাআলার রাসুলের সন্তুষ্টি অর্জন ।

Check Also

শয়তানের চ্যালেঞ্জ

শয়তানের চ্যালেঞ্জ

(মুসলিমবিডি২৪ডটকম) হজরত আইয়ুব রহ. হজরত আবু ক্বালাবা রাযি. থেকে বর্ণনা করেন।তিনি বলেছেন আল্লাহ রাব্বুল আলামীন …

Powered by

Hosted By ShareWebHost