Home / ইসলাম ধর্ম / সুদের ভয়াবহ পরিনতি মুহাম্মদ ইলিয়াস

সুদের ভয়াবহ পরিনতি মুহাম্মদ ইলিয়াস

(মুসলিমবিডি২৪ডটকম)

সুদের ভয়াবহ পরিনতি
Edit By afjol

সুদের ভয়াবহতা

মুহা. ইলিয়াস বিন শহীদুল্লাহঃ   প্রিয়বন্ধুগন!আজ আমরা আলোচনা করব সুদ নিয়ে ইংশাআল্লাহ ৷

সুদ এর আরবি প্রতি শব্দ হলো (الربوا) এর অর্থ বাড়তি বা অতিরিক্ত ৷ অর্থাৎ পদত্ব পরিমানের চেয়ে অতিরিক্ত আদায় করাকে সুদ বলা হয় ৷

 

একই শ্রেণির জিনিসের ক্ষেত্রে এই সুদ প্রযোজ্য ৷ এবং সাধারণত তা বাকি বিক্রির ক্ষেত্রেই হয়ে থাকে ৷ সুদের পরিচয় এর ব্যপারে হাদিসে এসেছে

 

قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ : ” الذَّهَبُ بِالذَّهَبِ، وَالْفِضَّةُ بِالْفِضَّةِ، وَالْبُرُّ بِالْبُرِّ، وَالشَّعِيرُ بِالشَّعِيرِ، وَالتَّمْرُ

 

بِالتَّمْرِ، وَالْمِلْحُ بِالْمِلْحِ مِثْلًا بِمِثْلٍ سَوَاءً بِسَوَاءٍ يَدًا بِيَدٍ، فَإِذَا اخْتَلَفَتْ هَذِهِ الْأَصْنَافُ فَبِيعُوا كَيْفَ شِئْتُمْ إِذَا كَانَ يَدًا بِيَدٍ رواه مسلم رقم الحديث ١٥٨٧

অর্থাৎরাসুল সা: বলেছেন, সো বিনিময়ে সোনা, রূপার বিনিময়ে রূপা, গমের বিনিময়ে গম, যবের বিনিময়ে যব,

 

খেজুরের বিনিময়ে খেজুর, লবণের বিনিময়ে লবণ, একই দ্রব্য একই প্রকার দ্রব্যের বিনিময়ে,

 

বরাবর (আদান প্রদানই হলো সুদ)আর যখন এই সমূহ ভিন্ন ভিন্ন হবে তখন নগদ যেভাবে ইচ্ছা ক্রয় বিক্রয় কর ৷ অর্থাৎ তা জায়েজ ৷

 

বন্ধুগন সুদ হচ্ছে যুলুম ও শোষণের একটি হাতিয়ার ৷ এই জন্য সুদ কে চিরতরে হারাম করেছে ৷ আল্লাহ পাক বলেন,

أحل الله البيع و حرم الربوا

অর্থাৎ আল্লাহ তায়ালা ক্রয় বিক্রয়কে হালাল করেছেন আর সুদকে হারাম করেছেন ৷

(সুরা বাকারাআয়াত নং 275) সুদের ক্ষতি আল্লাহ তায়ালা বলেন

يَمْحَقُ اللَّهُ الرِّبَا وَيُرْبِي الصَّدَقَاتِ وَاللَّهُ لَا يُحِبُّ كُلَّ كَفَّارٍ أَثِيمٍ سورة البقرة ٢٧٦

আল্লাহ তায়ালা সুদকে নিশ্চহ্ন করেন ৷ এবং দান খয়রাতকে বর্ধিত করেন ৷ আল্লাহ তা’য়ালা পছন্দ করেন না কোন অবিশ্বাসী পাপীকে ৷সুরা বাকারা আয়াত নং 276 ৷

 

অর্থাৎ আল্লাহ তায়ালা সুদ কে মিটিয়ে দেন তা দুনিয়া ও আখেরাতে উভয় জগতে ৷

 

সুদ খেয়ে বাহ্যিক ভাবে অনেক লাভবান দেখা গেলেও তার শেষ পরিনতি খুবই মন্দ হয় ৷

 

আর এই আয়াতে আল্লাহ তায়ালা এদিকেই ইশারা করেছেন ৷

রাসুলুল্লাহ সা: বলেন (لعن الله آكل الربا و موكله و شاهده و كاتبه)অর্থাৎ যে সুদ খায়,সুদ খাওয়ায়, সিদের সাক্ষী হয়,

 

ও তার দলীল লেখে তাদের উপর আল্লাহ তায়ালা লা’নত করেছেন ৷( সুনানে ইবনে মাজাহ হাদিস নং 2277)

 

আল্লাহ তায়ালার অভিশাপ কি কোন সাধারণ ব্যপার? আল্লাহ যার উপর লা’নত করেন সে শান্তিতে থাকতে পারে?

 

মুসতাদরাকে হাকেম এর মধ্যে এক হাদিসে এসেছে রাসুলুল্লাহ সা: বলেন

إذا ظهر الربا و الزنا في قرية فقد أحلوا بأنفسهم عذاب

 

الله অর্থাৎ সুদ ও ব্যভিচার যখন কোন দেশে বা শহরে ব্যপক হয়ে যায়, তখন তাদের উপর আল্লাহর আজাব আসা অনিবার্য হয়ে পড়ে ৷

 

আল্লাহর আজাব আসা অনিবার্য হয়ে যায় ৷ কত বড় কথা! আল্লাহর আজাব আসলে তার থেকে কি কেউ বাঁচতে পারে?

 

অন্য এক হাদিসে এসেছে

” انْتَهَيْتُ إِلَى السَّمَاءِ السَّابِعَةِ، فَنَظَرْتُ، فَإِذَا أَنَا فَوْقِي بِرَعْدٍ وَصَوَاعِقَ، ثُمَّ أَتَيْتُ عَلَى قَوْمٍ بُطُونُهُمْ كَالْبُيُوتِ، فِيهَا الْحَيَّاتُ تُرَى مِنْ خَارِجِ بُطُونِهِمْ، فَقُلْتُ : مَنْ هَؤُلَاءِ ؟ قَالَ : هَؤُلَاءِ أَكَلَةُ الرِّبَا.٨٧٥٧

রাসুল সা: বলেন, আমি যখন সপ্তম আকাশে গেলাম তখন আমি দেখলাম যে আমি এমন যায়গায় আছি যার উপরে বজ্র-ধ্বনি হচ্ছে ৷

 

এর পর আমি এমন এক দলের নিকটে আসলাম যাদের পেটসমূহ ছিল ের মত ৷ যার ছিল সর্প দিয়ে পরিপূর্ণ ,

 

যেগুলো পেটের বাহির থেকে দেখা যাচ্ছিল ৷ তখন আমি (জিবরীল আ:কে)বললাম,এরা কারা?

 

তিনি বললেন এরা হলো সুদখুর ( মুসনাদে আহমদ হাদিস নং 8757) সুবহানাল্লাহ!পেটের মধ্যে সাপ আর সেগুলো বাহির থেকে দেখা যাচ্ছিল ৷

 

কত ভয়ংকর পরিস্থিতি!হে ভাই তুমি কি এই সমস্থ শাস্তি সহ্য করতে পারবে?দুনিয়াতে তোমায় যদি একটা সর্প দংশণ করে তখন তোমার কি অস্থা হয়,তুমি কি ঠিক থাকতে পার?

 

এখন যদি তোমার পেটের ভিতরে অনেক গুলো সাঁপ থাকে যে গুলো আবার পেটের বাহির থেকে দেখা যায় তখন তোমার কি অবস্থা হবে?

 

তুমি কি একবারের জন্যও এ বিষয়টা চিন্তা করেছ? ভাই তোমার এই টাকা পয়সা, ধন সম্পদ কোন কিছুই তোমার সাথে কবরে যাবেনা ৷

 

তোমাকে খালি হাতেই কবরে যেতে হবে ৷ এই যে স্ত্রী, সন্তানদের জন্য সুদ খাচ্ছ তারা কিয়ামতের দিন তোমাকে কি বলবে জান?

 

তারা তোমাকে বলবে, আমরা তো তোমাকে চিনিই না ৷ বলবে আমার তো কোনদিন বিয়েই হয়নি ৷ সন্তান পিতা মাতা কেউ তোমাকে চিনবেনা ৷

 

এই যে সুদ খাচ্ছ তার জবাব তোমাকেই দিতে হবে ৷ আর কেউ দিবেনা ৷ তাই হে ভাই কেন তুমার মধ্য এখনো বুঝ আসেনা?

 

মৃত্যু কখন চলে আসে তা কি জানা আছে?হে বন্ধুরা একটু চিন্তা কর,একটু মাথাটা নিচের দিকে দিয়ে ফিকির কর,

কি হওয়ার ছিল আর কি হতে চলেছে!আল্লাহ পাক আমাদেরকে হেফাযত করুন ৷ আমীন!!

আরো পড়ুন!

বাস্তব ঘটনা সুদ ও ঘুষখোরের কবরের আজাব,সুদের টাকা মসজিদ মাদরাসা কিংবা

গরীবদের দান করতে পারবে কি, যে সকল গিবত জায়েযঃ মুহাম্মদ ইলিয়াস

About নঙ্গে আসলাফ আফজাল

নঙ্গে আসলাফ মুহাম্মাদ আফজাল ১৯৯৫ সালের ১৪ ই এপ্রিল জন্মগ্রহণ করেন।২০১২ সনে হিফজ সম্পন্ন করেন মাদ্রাসা দাওয়াতুল হক দেওনা,গাজীপুর, ঢাকা । উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করেন২০১৬ সনে ইসলামাবাদ মাদ্রাসা বি-বাড়িয়া । দাওরায়ে হাদিস (মাস্টার্স)সম্পন্ন করেন ২০২০ সনে শাহ সুলতান রহঃ মাদ্রাসা সিলেট । ইসলাম সম্পর্কে জানতে ও জানাতে পছন্দ করেন তাই; Muslimbd24.com এ তার দৈনিক ইসলামী নিউজ সহ বিভিন্ন লিখা প্রকাশিত হয়। ঠিকানা: বালাগঞ্জ, সিলেট। মোবাইল নাম্বার:০১৩০৩৭২১৪৬০ ইমেইল: hafijafjal601@gmail.com

Check Also

অহংকার কাকে বলে? এবং তা থেকে বাচাঁর পদ্ধতি কি?

অহংকার কাকে বলে? এবং তা থেকে বাচাঁর পদ্ধতি কি?

(মুসলিমবিডি২৪ডটকম) অহংকার কাকে বলে ?  অহংকার হলো: জ্ঞান-বুদ্ধি, ইবাদত-বন্দেগী, মান-সম্মান, দৌলত ইত্যাদি যে কোনো বিষয়ে …

Powered by

Hosted By ShareWebHost