Home / ইসলাম ধর্ম / করোনা ভাইরাস নিয়ে হাতিম আল-ফেরদৌসীর কিছু কথা

করোনা ভাইরাস নিয়ে হাতিম আল-ফেরদৌসীর কিছু কথা

(মুসলিমবিডি২৪ডটকম)

করোনা ভাইরাস নিয়ে হাতিম আল-ফেরদৌসীর কিছু কথা

بسم الله الرحمن الرحيم

আমার শ্রোতা বন্ধুরা, বয়স্কদের থেকে আগেকার দিনে আসা সম্পর্কে শোনেছি।

যেমন:আগে আগে নাকি ডায়রিয়া, বসন্ত এসকল রুগ মহামারী আকারে আসতো এবং এলাকার পর এলাকা জুড়ে এর প্রাদুর্ভাব দেখা যেতো।

এতে অনেক লোকের প্রাণহানি ঘটতো। কিন্তু আমি আমার জনমেও মহামারী দেখিনি।

তাই আমি একটা জিনিস ভাবতাম যে, আগেকার দিনে মহামারী আসার পেছনে একটা কারণ ছিলো, আর তা হলো, তখনকার যোগে চিকিৎসাবিজ্ঞান উন্নত না থাকা।

ভাবতাম, চিকিৎসাবিজ্ঞান সে যুগে এত উন্নত না থাকায়ই তখন অভিজ্ঞ চিকিৎসকের অভাবে রুগীকে সঠিক চিকিৎসা দেয়া যেত না বিধায়

তখন কোনো রুগে আক্রান্ত হয়ে একের পর এক মানুষ মারা যেতো। কিন্তু আজ আমার সে বিশ্বাসের সবটুকুই ধুলিসাৎ হয়ে গেছে।

আজ অত্যাধুনিক যুগের আধুনিকতার একেবারে শীর্ষের মানবজাতি আমরা। আমরা ভাবছি, গুটা দুনিয়া আমাদের হাতের মুঠোয়।

আমরা এমন সব অস্ত্র বানিয়েছি যা প্রয়োগ করে দেশের পর দেশ ধ্বংসস্তুপে পরিণত করা যায়। আরো ভাবছি, দুনিয়াকে জয় করে আমরা এবার মহাকাশ জয়ের পথে।

চন্দ্র জয় হয়ে গেছে, এবার মঙ্গল। আমাদের অহঙ্কার সীমা ছেড়েছে। কিন্তু এখন! এখন অহঙ্কারের অসীমতা অসীম অসহায়ত্বে পরিণত হয়ে। গুটা দুনিয়া আজ অসহায়।

প্রতিটি মানুষ কেবল নিজেকে নিয়েই ভাবছে, কি ভাবে আত্মরক্ষা করা যায়।

বন্ধুরা, স্মরণ করুন নমরূদের ইতিহাস। আজো তা পৃথিবীর বুকে কিংবদন্তী হয়ে আছে। তারও অহঙ্কার মাত্রা ছেড়েছিলো।

কিন্তু মহা পরাক্রমশালী আল্লাহ তাকে ছোট্ট এক সৃষ্টি মশার শক্তির কাছে অসহায় করে দিয়েছিলেন।
মশা তো এমন একটি প্রাণী যাকে চোখে দেখা যায়।

কিন্তু আমরা যে জিনিসের কাছে অসহায় সেটি এত ছোট যে তাকে আমরা চোখেই দেখি না।

এসব মূলতঃ মহা পরাক্রমশালী আল্লাহ পাকেরই কুদ্রতের বহির্প্রকাশ যে, তোমরা শক্তির যতই বড়াই কর না কেনো,

আমার সামান্য শক্তির কাছে তোমরা কিন্তু একেবারে কিছুই নয়। পবিত্র কোরানে আল্লাহপাক নিজেই বলেন__, “নিশ্চই আল্লাহপাক সর্ব বিষে ক্ষমতাবান।”

আমার বন্ধুরা, আসুন আমরা আল্লাহর কাছে পানাহ চাই। তাঁর দিকে রুজু হই!

হাতিম আল-ফেরদৌসী

লেখকঃ দার্শনিক, কবি ও গবেষক

About Abdul Basit

1995 সনে মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া থানাধীন পৃথিমপাশা ইউনিয়নের আলীনগর গ্রামের এক ধার্মিক মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন হাতিম আল-ফেরদৌসী। তিনি 14_15 সনে মাদ্রাসা থেকে দাওরায়ে হাদীস ( মাস্টার) ক্লাস সমাপ্ত করে ইলমে তাফসীরের উপর অধ্যয়ন করেন। পাশাপাশি তিনি সিলেটের ঐতিহ্যবাহী ন্যাশনাল ভার্সিটি M. C -তে Philosophy ( দর্শন) নিয়ে অনার্স পড়েন। তিনি একাধারে আলেম, দার্শনিক, গবেষক ও সাহিত্যিক। সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় তাঁর বিচরণ হলেও কাব্য সাধনায় তিনি অগ্রগামী। তিনি আধ্যাত্মবাদী কবি। উত্তর-পূর্ব ভারতের দ্বিতীয় আমীরে শরীয়ত শায়খুল মাশায়েখ আল্লামা তৈয়বুররাহমান বড় ভুঁইয়া (রহ.)-র পক্ষ থেকে দশই নভেম্বর 2018 ইংরেজি মোতাবেক ১লা রবিউল আওয়াল 1440 হিজরী রোজ শনিবার সকাল 6 ঘটিকার সময় সিলেটের সুপ্রসিদ্ধ মাদ্রাসা জামেয়া মাদানিয়া কাজির বাজারের খানকায়ে তৈয়্যিবীয়াতে মসজিদ ভর্তি মুসল্লিদের সামনে আধ্যাত্মিকতার ইজাযত লাভ করেন। তাই তাঁর কবিতা ও লেখালেখিতে পাওয়া যায় আধ্যাত্মিকতার ঝলক।

Check Also

কবরে সুবাসিত পানির স্বাদ

এক মদপায়ীর করুন মৃত্যুদশা

(মুসলিমবিডি২৪ডটকম) যারা নিজেদের কুকর্মের দ্বারা আল্লাহকে অসন্তুষ্ট করৈ এবং সারাজীবন তার নাফরমানীর মধ্যে লিপ্ত থাকে,তার …

Leave a Reply

Powered by

Hosted By ShareWebHost