Home / আল্লাহর ওলীগণ / শায়েখ আনোয়ারুল হক চৌধুরী রহঃ-র সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

শায়েখ আনোয়ারুল হক চৌধুরী রহঃ-র সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

(মুসলিমবিডি২৪ডটকম)

শায়েখ আনওয়ারুল হক্ব চৌধুরী রহঃ এর পরিচিতি

 

بسم الله الرحمن الرحيم

ধর্মীয়শিক্ষায় নারীজাগরণের অগ্রনায়ক প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন আল্লামা শায়ে আনওয়ারুল হক চৌধুরী (র.)-র সংক্ষিপ্ত পরিচিতিঃ

জন্ম ও বংশঃ সিলেটের অন্তর্গত বালাগঞ্জ থানাধীন গহরপুর পরগনার সুলতানপুর গ্রামের এক ঐতিহ্যবাহী মুসলিম জমিদার পরিবারে তিনি জন্ম গ্রহণ করেন।

বংশ পরম্পরা হযরত শাহ জালাল মুজাররাদে ইয়ামেনী (রহ.)-র অন্যতম সাথী হযরত শাহ আলাউদ্দিন (রহ.)-র সূত্রে

খলীফাতুর রাসূল হযরত সিদ্দীকে আকবর (রাযি.)-র সঙ্গে মিলিত হয়

বাল্যকাল ও শিক্ষাজীবনঃ শিশুকাল থেকেই তিনি ছিলেন ন্যায়ের ধারক আর অন্যায়ের বিরুদ্দে প্রতিবাদী। নিজের পর্বপুরুষদের প্রতিষ্ঠিত বাড়ির মাদরাসায় ৮ম

শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করার পর তৎকালীন বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান সিলেট আলিয়ায় তিনি সুনামের সাথে লেখাপড়া করে সম্পূর্ণতা অর্জন করেন।

কর্মজীবনঃ সঙ্গত কারণে কর্মজীবনের প্রথম কয়েকটি বৎসর তিনি ব্যবসায় নিয়োজিত হন পরবর্তীতে হযরত শাহ জালাল দরগাহ মসজিদে ইমামতির দায়ীত্ব আদায় করেন।

প্রখ্যাত বুজুর্গ হযরত হরমুযুল্লাহ (রহ.)-র সাথে হজ্জ্বের সফর সঙ্গী হয়ে কয়েক মাস উনার নেক সুহবতের বদৌলতে আধ্যাত্মিকতার অনেক রসদ অর্জন করেন।

অতঃপর ধর্মীয় শিক্ষায় নারীজাগরণের অগ্রণী ভূমিকা পালন করে প্রতিষ্ঠা করেন “আল জামেয়াতুতত্বায়্যিবাহ হযরত শাহ সুলতান (রহ.) মহিলা মাদরাসা”।

এরপর পুরুষদের জন্য প্রতিষ্ঠা করেন “হযরত শাহ সুলতান (রহ.) টাইটেল মাদরাসা”।

এছাড়াও সর্বসাধারণের প্রতি লক্ষ রেখে তিনি প্রবর্তন করেন “এ’লায়ে কালেমাতুল্লাহ” সংগঠন।

পরলোকগমনঃ ১-৬-২০২০ ইংরেজী রোজ সোমবার ভোর ৪.৫০ মিনিটের সময় তিনি মনীবের ডাকে হাজিরি দেন।

ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।
এসময় তাঁর বয়স ৮৭ বৎসর অতিক্রম করছিলো।

বিঃ দ্রঃ এখানে সাগর থেকে চামুচে পানি তুলার মতো করে জীবনের আদি-অন্তটি তুলে ধরলাম। বিস্তারিত জানতে অপেক্ষায় থাকুন!

About Abdul Basit

1995 সনে মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া থানাধীন পৃথিমপাশা ইউনিয়নের আলীনগর গ্রামের এক ধার্মিক মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন হাতিম আল-ফেরদৌসী। তিনি 14_15 সনে মাদ্রাসা থেকে দাওরায়ে হাদীস ( মাস্টার) ক্লাস সমাপ্ত করে ইলমে তাফসীরের উপর অধ্যয়ন করেন। পাশাপাশি তিনি সিলেটের ঐতিহ্যবাহী ন্যাশনাল ভার্সিটি M. C -তে Philosophy ( দর্শন) নিয়ে অনার্স পড়েন। তিনি একাধারে আলেম, দার্শনিক, গবেষক ও সাহিত্যিক। সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় তাঁর বিচরণ হলেও কাব্য সাধনায় তিনি অগ্রগামী। তিনি আধ্যাত্মবাদী কবি। উত্তর-পূর্ব ভারতের দ্বিতীয় আমীরে শরীয়ত শায়খুল মাশায়েখ আল্লামা তৈয়বুররাহমান বড় ভুঁইয়া (রহ.)-র পক্ষ থেকে দশই নভেম্বর 2018 ইংরেজি মোতাবেক ১লা রবিউল আওয়াল 1440 হিজরী রোজ শনিবার সকাল 6 ঘটিকার সময় সিলেটের সুপ্রসিদ্ধ মাদ্রাসা জামেয়া মাদানিয়া কাজির বাজারের খানকায়ে তৈয়্যিবীয়াতে মসজিদ ভর্তি মুসল্লিদের সামনে আধ্যাত্মিকতার ইজাযত লাভ করেন। তাই তাঁর কবিতা ও লেখালেখিতে পাওয়া যায় আধ্যাত্মিকতার ঝলক।

Check Also

কুরবানী ফযীলত ও তার জরুরি মাসায়েল

কুরবানীর ফযীলত ও তার জরুরি মাসায়েল

(মুসলিম বিডি ২৪.কম)  بسم الله الرحمن الرحيم কুরবানীর ফযীলত রাসুলে পাক (সা.) ইরশাদ করেন, কুরবানীর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Powered by

Hosted By ShareWebHost