Breaking News
Home / সাক্ষাৎকার / করোনা ভাইরাস নিয়ে হাতিম আল-ফেরদৌসীর গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষাৎকার

করোনা ভাইরাস নিয়ে হাতিম আল-ফেরদৌসীর গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষাৎকার

(মুসলিমবিডি২৪ডটকম) 

করোনা ভাইরাস নিয়ে দেওয়া হাতিম আল-ফেরদৌসীর সাক্ষাৎকার

 بسم الله الرحمن الرحيم

 মাওলানা আফজালঃ   আসসালামু আলাইকুম রাহমাতুল্লাহ

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ ওয়ালাইকুমুস সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহ!

মাওলানা আফজালঃ কেমন আছেন হযরত?

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ আলহামদুলিল্লাহ, ভালো আছি। আপনি ভালো তো?

মাওলানা আফজালঃ জ্বী, আলহামদুলিল্লাহ।

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ কি উদ্দেশ্য, বিশেষ কোন প্রয়োজনে আসেননি তো?

মাওলানা আফজালঃ সময়ের চাহিদাকে সামনে রেখে বিশেষ প্রয়োজনেই আপনার কাছে আসা।

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ ও, তাই ? বলুন তাহলে।

মাওলানা আফজালঃ আমরা জানি, আপনি মানবতার কল্যাণে দেশ ও জাতির বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে চিন্তা করেন

এবং সেগুলোর সমাধান খুঁজে উত্তম ব্যবস্থা মানুষের সামনে হাজির করেন।

তো, বর্তমান সম্পর্কে তো অবশ্যই আপনার জানা আছে ?

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ জ্বী, এসম্পর্কে আমি অবগত আছি।

মাওলানা আফজালঃ এ মহামারী পুরো বিশ্বে যে হারে ছড়িয়ে পড়ছে বলে শোনা যাচ্ছে তার বাস্তবতা সম্পর্কে আপনি কী বলেন ?

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ আমি মনেকরি এব্যপারে বাস্তবতার চেয়ে গুজবই মারাত্মক হয়ে দেখা দিয়েছে।

সামাজিক মিডিয়াগুলো তাদের স্বার্থকে গুরুত্ব দিতে গিয়ে, নিজেদেরকে ভাইরাল করার লক্ষ্যে আদনা বিষয়কেও বড় করে পেশ করার সর্বোচ্চ চেষ্টা চালায়।

তাদের এ প্রবনতা থেকে করোনা ভাইরাসও যে মুক্ত নয় তা অবশ্যই বিশ্বাস করতে হবে।

আমার একথার সপক্ষে Daffodil international University কর্তৃক আয়োজিত সেমিনারগুলোতে রাখা বিশেষজ্ঞদের বক্তব্যসমূহ শোনা যেতে পারে।

 

মাওলানা আফজালঃ তাহলে কি আপনি করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব অস্বীকার করছেন?

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ অসম্ভব । না আমি এ মহামারীর অস্তিত্বকে অস্বীকার করছি, আর না তার ক্ষতিসাধনকে।

আমার কথা হলো, 10 জন লোক যদি এ রুগে মারা যায় তবে সামাজিক মিডিয়াগুলো একে এমনভাবে প্রচার করতে শুরু করে মনে হয় যেন শত শত লোক মারা গেছে।

এটা মানুষের মনে চরম হীনমন্যতার সৃষ্টিকারী যা অকল্যাণকর ।

এতে অহেতুক ত্রাস ছড়িয়ে পড়ছে । মানুষ আপনজনকে ছেড়ে পালাচ্ছে। কেউ কারো সহযোগীতায় এগোচ্ছে না।

 

মাওলানা আফজালঃ তাহলে কি সতর্কতা অবলম্বন করা যাবে না?

 

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ অবশ্যই, তাই বলে কি মানুষ মানুষকে বিপদের মুখে ফেলে দিয়ে চলে যাবে ?

মানুষ আর হায়ওয়ানাতে পার্থক্য তো এখানেই যে, মানুষ অপর মানুষের সহযোগিতায় এগিয়ে আসে, অন্যান্য প্রাণীরা এমন করে না।

কিন্তু বর্তমানে ত্রাসের মাত্রা এতদূর গিয়ে পৌঁছেছে যে, কারো ব্যাপারে যদি সে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে বলে জানা যায়,তাহলে সকলেই তাকে এড়িয়ে চলতে শুরু করি।

এমন ভাবে এড়িয়ে চলি যে, আপনজন যেমন, সন্তান হয়ে মাতা-পিতাকে ত্যাগ করছে, মাতা-পিতা হয়ে

সন্তানকে ত্যাগ করছে। একজন অপরজনের এই মরণমূহুর্তে শান্তির বাণী শোনাবে তো দূরের কথা বরং রুগীকে দূরে কোথাও ফেলে রেখে আসা হচ্ছে ।

আহা! এসব মানবতার অপমান। বিধর্মীদের বেলা এমন আচরণে আমি আশ্চর্যবোধ করি না; আমার কাছে আশ্চর্য লাগছে,

এবার মুসলমানরাও ওদের মতো আতঙ্ক অন্তরে লালন করতে শুরু করেছে! এ তো সতর্কতার নামে মনুুষ্যত্ব আর সহমর্মিতার প্রতি অবিচার!

মাওলানা আফজালঃ তাহলে এ মূহুর্তে আমাদের কী করণীয় বলে আপনি মনে করেন?

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ আমরা জানি, ইসলাম এন এক ধর্ম যেখানে মানবজীবনে চলে আসা সকল সমস্যার রয়েছে সার্থক সমাধান।

তাই এ মূহুর্তে আমাদের উচিত হলো যোগ্য ও হক্কানী আলেমদের থেকে পরামর্শ গ্রহণ করা এবং সে মতে চলা।

মাওলানা আফজালঃ এব্যাপারে করণীয় সম্পর্কে সরাসরি আপনার কিছু দিকনির্দেশনা শোনতেই চাই!

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ আমি বলি, মহামারী বা রোগ-ব্যধি এলে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কি করতে বলেছেন বা করেছেন আমরা সেইটা করবো।

যেমনঃ

(১)

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, মহামারী যে এলাকাতে আসে কেউ যেনো সে এলাকায় না যায়, এবং সেখান থেকেও কেউ যেন বেরিয়ে না আসে?

(২)

বেশি বেশি এই দো’আ পড়বো_ ” اللهم انى اعوذبك من البرص و الجنون و الجذام و من سييء الاسقام”

অর্থঃ আয় আল্লাহ, আমি আনার নিকট পানাহ চাই শ্বেতরোগ হতে, উন্মাদনা হতে, কুষ্ঠরোগ হতে এবং কঠিন কঠিন ব্যাধিসমূহ হতে। ”

এছাড়া, বালা মুসীবাতের রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর শিখানো অন্যান্য দো’আও পড়তে পারি।

(৩)

আমরা সব সময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হয়ে থাকবো। এর জন্য উত্তম হচ্ছে সর্বদা উযুসহ থাকা।

 

মাওলানা আফজালঃ বর্তমানে শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানগুলি বন্ধের ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত আপনি কোনো চোখে দেখেন ?

 

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ সরকারি শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানগুলি নিয়ে কিছু বলব না,

কিন্তু কওমী মাদরাসাগুলো বন্ধ করে দিলে ক্ষতি ছাড়া কল্যাণের কিছুই দেখছি না।

মাওলানা আফজালঃ অনেক অনেক শুকরিয়া আমাদেরকে সময় দেওয়ার জন্য ! এবার আমাদেরকে চলে যেতে হচ্ছে।

 

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ আপনাদের প্রতিও থাকলো আমার ভালোবাসা । খোদা হাফেজ!

 

মাওলানা আফজালঃ السلام عليكم ورحمة الله

হাতিম আল-ফেরদৌসীঃ وعليكم السلام و رحمة الله

 

About নঙ্গে আসলাফ আফজাল

নঙ্গে আসলাফ আফজাল ১৯৯৫ সালের ১৪ ই এপ্রিল মাসে জন্মগ্রহণ করেন।২০১২ হিফজ সম্পন্ন করেন মাদ্রাসা দাওয়াতুল হক দেওনা,গাজীপুর, ঢাকা থেকে। উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করেন২০১৬ সনে ইসলামাবাদ মাদ্রাসা বি-বাড়িয়া থেকে। দাওরায়ে হাদিস (মাস্টার্স)সম্পন্ন করেন ২০২০ সনে শাহ সুলতান রহঃ মাদ্রাসা সিলেট থেকে।তিনি লেখা-লেখিতে অভ্যস্ত, বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় তার লিখা প্রকাশ করা হয়েছে। Muslimbd24.com এ তার দৈনিক ইসলামী নিউজ সহ বিভিন্ন লিখা প্রকাশিত হয়। ঠিকানা: বালাগঞ্জ, সিলেট। মোবাইল নাম্বার:০১৭১৪৪৭৫৭৪৫ ইমেইল: hafijafjal601@gmail.com ইউটিউব চ্যানেলঃ https://www.youtube.com/channel/UCocSpOf_nj57ERq1QorZA6A

One comment

  1. নঙ্গে আসলাফ আফজাল

    ধন্যবাদ আপনাকে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Powered by themekiller.com